বাংলাদেশে চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসার সদ্য পদত্যাগী পরিচালক হেফাজতে ইসলামের আমীর শাহ আহমদ শফী মারা গেছেন।

আজ দুপুরে অসুস্থ অবস্থায় হেলিকপ্টারযোগে ঢাকায় আনার পর একটি হাসপাতালে মারা যান তিনি।

হেফাজতে ইসলামের নেতা মুফতি মোহাম্মদ ফয়জুল্লাহ বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন যে শুক্রবার সন্ধ্যে ৬টায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

এর আগে দু’দিনের বিক্ষোভের পর বৃহস্পতিবার রাতে হাটহাজারী মাদ্রাসার শুরা কমিটির সভায় ওই মাদ্রাসার পরিচালকের পদ থেকে সরে দাঁড়ান আহমদ শফী, যিনি ঢাকায় শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের এক বিশাল সমাবেশের আয়োজন করে আলোচনায় এসেছিলেন।

তার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন যে বৃহস্পতিবার গভীর রাতেই তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছিলো।

তিনি ডায়াবেটিসসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আহমদ শফীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন।

এদিকে তার মৃত্যুর খবর প্রচারের সাথে ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে ভিড় করতে শুরু করেছেন তার অনুসারীরা।

দুই ছেলে আর তিন মেয়ের জনক আহমদ শফী জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৯৩০ সালে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায়।

তিনি হাটহাজারী মাদ্রাসা ছাড়াও ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসায় পড়ালেখা শেষ করে ফিরে এসে হাটহাজারী মাদ্রাসাতেই শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন।

তিনি দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোর নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন এবং বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের (বেফাক) সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন।

সবশেষে ছাত্র বিক্ষোভের মুখে বৃহস্পতিবার রাতে তিনি মাদ্রাসাটির পরিচালকের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন।

এরপর রাতেই অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়।

পরে শুক্রবার বিকেলে ঢাকায় এনে হাসপাতালে ভর্তির কিছুক্ষণ পর তিনি মারা যান।

শনিবার দুপুর দুটায় হাটহাজারী মাদ্রাসায় আহমদ শফীর জানাজা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন ওই মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক শেখ আহমদ।

জানাজার পর মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে মসজিদের পাশেই তাকে দাফন করা হবে বলে জানিয়েছেন মিস্টার আহমদ। সূত্র : বিবিসি